বর্তমানে চারটা বিপদের মুখে রয়েছে বাংলাদেশ : ইনু


সেপ্টেম্বর ২০ ২০২২

মশাল ডেস্ক: জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বর্তমানে চারটা বিপদের মুখে রয়েছে বাংলাদেশ। সুতরাং বাংলাদেশকে যদি সামনের দিকে এগুতে হয়, তাহলে একদিকে অস্বাভাবিক সরকার প্রতিষ্ঠায় বিএনপি-জামায়াতের চক্রান্ত, তালবানি সরকার প্রতিষ্ঠায় বিএনপি-জামায়াতের চক্রান্ত বানচাল করে দিতে হবে। অপরদিকে বাজার সিন্ডিকেটের কারসাজি সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস করতে হবে।
সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কুষ্টিয়া জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে জাসদের খুলনা বিভাগীয় প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

হাসানুল হক ইনু আরও বলেন, বৈশ্বিক সংকট আছে, কিন্তু বাজার সিন্ডিকেটের কারসাজির জন্য নিত্যপণ্যের অত্যাধিক মূল্য বৃদ্ধি হয়েছে। সুতরাং দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির বিষয়ে বিদেশের ওপর দায় চাপিয়ে পার পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। আমাদের বাজার সিন্ডিকেটকে যদি ধ্বংস করতে পারি, তাহলে অবশ্যই দ্রব্যমূল্য নাগালের ভেতর আনা সম্ভব হবে। নিত্যপণ্যের দাম স্থিতিশীল রাখার জন্য সরকারি পদক্ষেপের পাশাপাশি শ্রমিক, গরিব ও মেহনতি মানুষের জন্য রেশনিং পদ্ধতি চালু করা আহ্বান জানান তিনি।
১৪ দলীয় জোট প্রসঙ্গে হাসানুল হক ইনু বলেন, একলা চলা নীতিতে চলা আওয়ামী লীগর জন্য হবে আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত। জাসদ চায় স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তিগুলো ঐক্যবদ্ধ থাক এবং ঐক্যবদ্ধভাবে আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক।

মিয়ানমার ইস্যু নিয়ে তিনি বলেন, মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ উত্তাপ আমাদের সীমান্তে এসে পৌঁছেছে। এতে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। আলোচনা সাপেক্ষে বিষয়টি সমাধান হতে পারে।
জাসদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও কুষ্টিয়া জেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলিম স্বপনের সঞ্চালনায় বিভাগীয় প্রতিনিধি সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিতি ছিলেন জাসদের সাধারণ সম্পাদক এবং সংসদ সদস্য শিরীন আখতার।


প্রতিনিধি সভায় আরো বক্তব্য রাখেন,জোসদ কেন্দ্রিয় কমিটির উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজি রিয়াজ, জাসদের সহ সভাপতি আফরোজা হক রীনা, বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিউদ্দীন মোল্লা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুর রহমান চুন্নু, জাতীয় কৃষক জোটের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ আশেক-ই-এলাহী, জাসদের স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক ও সাতক্ষীরা জেলা জাসদের সভাপতি শেখ ওবায়দুস সুলতান বাবলু, কুষ্টিয়া জেলা জাসদ সভাপতি গোলাম মহসিন প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।
এ সময় কেন্দ্রীয় ও খুলনা বিভাগের ১০ জেলার নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও বিভাগের বিভিন্ন জেলা, উপজেলা ও পৌর শাখার নেতারা প্রতিনিধি সভায় অংশ নেন।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন