বাংলায় আলকায়দার নিশানায় একাধিক রাজনীতিক, বিধানসভা নির্বাচনের আগে সতর্ক করলেন গোয়েন্দারা


নভেম্বর ১৪ ২০২০

  • আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

বাংলায় বড় ধরনের নাশকতার পরিকল্পনা করছে আলকায়দা। তাদের নিশানায় রয়েছেন একাধিক প্রথম সারির রাজনীতিক। তার জন্য অনলাইনে জঙ্গি নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছে তারা। আসন্ন ভারতের বিধানসভা নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু হয়ে গিয়েছে এ রাজ্যে। সেই পরিস্থিতিতেই বাংলায় নাশকতা ঘটতে পারে বলে কেন্দ্রকে সতর্ক করল ইনটেলিজেন্স ব্যুরো (আইবি)।


গত ৫ নভেম্বর কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে একটি রিপোর্ট জমা দিয়েছে আইবি। তাতে বলা হয়েছে, বাংলা থেকে অল্পবয়সি ছেলেমেয়েদের দলে টানতে বিদেশি হ্যান্ডলারদের ব্যবহার করা হচ্ছে। অনলাইনে বাংলার অল্পবয়সি ছেলেমেয়েদের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করছে ওই হ্যান্ডলাররা। ওই সমস্ত ছেলেমেয়েকে মৌলবাদে দীক্ষিত করার প্রচেষ্টা চলছে। মগজধোলাই করে তাদের দলে যুক্ত করা হচ্ছে।
বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে পাকিস্তানি জঙ্গি সংঠন লস্কর-ই-তৈবা ভারত থেকে ছেলেমেয়ে নিয়োগ করছে বেল গত মার্চ মাসে এ রাজ্যেই একটি এফআইআর দায়ের হয়। তার তদন্তে নেমে এখনও পর্যন্ত ১১ জন জঙ্গি অপারেটিভকে গ্রেফতার করেছে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ)। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা গিয়েছে, পাকিস্তানের করাচি এবং পেশোয়ারে দু’টি নিয়োগ কেন্দ্র খুলেছে আলকায়দা। সেখান থেকে বেছে বেছে বাংলার ছেলেমেয়েরই দলে যোগ দেওয়াচ্ছে তারা।
সেই মামলার তদন্তে নেমে সম্প্রতি কর্নাটকের উত্তর কন্নঙ থেকে সৈয়দ এম ইদ্রিস নামের ২৮ বছরের এক যুবককে গ্রেফতারও করে এনআইএ। লস্কর হ্যান্ডলারদের সঙ্গে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া গ্রুপে সে শামিল ছিল। বাংলা-সহ ভারতের বিভিন্ন জায়গায় তাদের হামলা চালানোর পরিকল্পনা ছিল বলেও জানতে পারেন তদন্তকারীরা। এনআইএ সূত্র জানা গিয়েছে, বাংলার একাধিক রাজনীতিক আলকায়দার নিশানায় রয়েছেন।
তবে এই প্রথম নয়, বাংলায় আলকায়দার শক্তিবৃদ্ধি নিয়ে আগেও বিভিন্ন সময় সতর্ক করেছেন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা। দেঙ বছর আগের একটি রিপোর্টে বলা হয়, বাংলায় আলকায়দার যে শাখা রয়েছে, অল্পবয়সি ছেলেমেয়েদের কাশ্মীরের জিহাদে যোগ দিতে উৎসাহ জোগাচ্ছে তারা। বাংলাভাষীদের জন্য আলকায়দা বাংলা আলাদা ভাবে কায়দাতুল জিহাদও তৈরি করেছে বলে জানা গিয়েছে। এর শাখা হিসেবে আবার কাজ করে বাংলাদেশের জঙ্গি সংগঠন জামাতুল মুজাহিদিন (জেএমবি)।
খাগঙাগঙ বিস্ফোরণের সময় ভারতে জামাতুল মুজাহিদিনের ঘাঁটির বিষয়টি সামনে আসে। পরবর্তীতে এই জামাতুল মুজাহিদিনের বাংলাদেশের একটি অংশ তাদের শীর্ষ নেতা সালাউদ্দিনের নেতৃত্বে জামাতুল মুজাহিদিন হিন্দ বা জামাতুল মুজাহিদিন ইন্ডিয়া (জেএমআই) তৈরি করে। গোয়েন্দাদের দাবি, এ রাজ্যে আলকায়দার মূল শাখা সংগঠন হিসেবে কাজ করছে সালাউদ্দিনের জামাতুল মুজাহিদিন। রাজ্যে জেএমবি-র পুরনো স্লিপার সেলে যে সমর্থকরা রয়েছে, তাদের ব্যবহার করেই আলকায়দা নতুন করে বাংলা থেকে ছেলেমেয়ে নিয়োগ করতে শুরু করেছে বলে জানা গিয়েছে।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন