বাঁশদহায় শুরু হয়েছে নির্বাচনি আমেজ


নভেম্বর ১৮ ২০২০


নিজস্ব প্রতিনিধি: কয়েক মাস যেতেই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন । সদর উপজেলার ১নং বাঁশদহা উইনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রতীক নিয়ে শুর হয়েছে লড়াই । চায়ের দোকান, হাট-বাজার, কৃষকের ফসলে মাঠ সর্বত্র চলছে আলোচনা সমালোচনা। কে হবে আগামী নির্বাচনে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান। তবে সাধারণ মানুষ বলছে আওয়ামীলীগের প্রার্থী নির্বাচনে জয় লাভ করবে। বিএনপি সামর্থকরা বলছে সুষ্ঠ নির্বাচন হলে ধানের শীষের প্রাথী জয়লাভ করবে। জাতীয় পাটির প্রার্থী জয় লাভের আসায় মাঠে রয়েছে। তবে দলীয় প্রতীক নিতে স্ব-স্ব দলের প্রাথীদের মধ্যে চলছে লড়াই ।
ইউনিয়নের ভোটারদের সাথে কথা বলে জানাযায় , ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেতে একাধিক প্রাথী মাঠে নেমেছে। নৌকা প্রতীক নেওযার জন্য মাঠ চষে বেড়াচ্ছে বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি এস এম মোশারাফ হোসেন। তবে নৌকা প্রতীক নিতে তার সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মাষ্টার মফিজুর রহমান।এছাড়া নৌকা প্রতীক নেওয়ার জন্য চেষ্টা চালাচ্ছেন সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক উপাধ্যক্ষ শাহাজান সিরাজ। তিনি ইউনিয়নে সাধারণ ভোটারদের সাথে ইতি মধ্যে সভা সমাবেশ করে বেড়াচ্ছেন ।
ধানের শীষ প্রতীক নেওয়ার জন্য মাঠে রয়েছে বিএনপি নেতা কামরুল ইসলাস, সাবেক চেয়ারম্যান নাছিমুল হক খোকা। তারা ইতি মধ্যে নেতাকর্মীদের সামর্থন আদায় করার জন্য ইউনিয়নের এক প্রান্ত থেকে অপার প্রান্ত ছুটে চলেছেন ।
তবে জামায়াতের প্রার্থী মাওলানা রমজান আলী দলের পক্ষ থেকে ভোট করবেন। তিনি দলের সামর্থন নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেবে বলে প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছেন।সুষ্ট ভোট হলে প্রতীক যাই হোক না কেন তার দল নির্বাচনে অংশ নেবে বলে জানান তিনি ।
এছাড়া জাতীয় পাটির লাঙ্গল প্রতীকের জন্য একক প্রাথী হিসেবে মাঠে রয়েছে সদর উপজেলা জাতীয় পাটির সাধারণ সম্পাদক শরিফুজ্জামান বিপুল। তিনি গত নির্বাচনে অল্প ভোটে পরাজিত হয়ে ছিলেন। এবার তিনি অনেক আগে থেকেই মাঠে নেমেছেন।
সতন্ত্র প্রাথী হিসেবে মাঠে রয়েছে নাজমুল হোসেন।
এছাড়া সব দলে আরো অনেকে প্রাথী হওয়ার জন্য ইতি মধ্যে সাইন বোড, ব্যানার, ফেসটুন ঝুলিয়েছে হাট-বাজার, মোড়, দোকান পাটের সামনে ।
তবে কে হবেন আগামী দিনে বাঁশদহা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তা দেখার জন্য ইউনিয়নবাসিকে অপেক্ষা করতে হবে নির্বাচনের দিন পর্যন্ত ।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন