জেলা নাগরিক কমিটি আজ জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবীতে সাতক্ষীরা পৌরসভার মেয়রের কাছে স্মারকলিপি পেশ করবে


সেপ্টেম্বর ১ ২০২০

মশাল ডেস্ক: শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবীতে আজ মঙ্গলবার সাতক্ষীরা পৌরসভার মেয়রের কাছে স্মারকলিপি পেশ করবে জেলা নাগরিক কমিটি। জেলা নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক মো. আনিসুর রহিম ও সদস্য সচিব মো. আবুল কালাম আজাদ জানান, প্রতিবছরের মতো এবারও সাতক্ষীরা পৌরসভার বিস্তীর্ণ এলাকা পানিতে তলিয়ে রয়েছে। এইসব এলাকায় বসবাসকারী মানুষ সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। অনেকের ঘরের মধ্যেই পানি উঠেছে। মানুষের রান্না-খাওয়া, পয়:নিষ্কাশন, স্যানিটেশন ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। রাস্তা-ঘাট, ড্রেনেজ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত। জেলা কালেকটারেট চত্বর, জজ কোট চত্তর, পুলিশ লাইনন্স, বিজিবি ক্যাম্প, সুন্দরবন টেক্সটাইল মিলস, সাতক্ষীরা সদর উপজেলা পরিষদসহ গুরুত্বপূর্ণ সরকারী দপ্তরও পানিতে তলিয়ে রয়েছে। প্রতিবছর এই জলাবদ্ধতাকবলিত এলাকার পরিধি বাড়ছে। এরফলে রাষ্ট্রীয় সম্পদ থেকে শুরু করে জনগণের সহায় সম্পদের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে। কিন্তু সাতক্ষীরা পৌরসভার পক্ষ থেকে সমস্যা সমাধানে কার্যকর কোন উদ্যোগ পরিলক্ষিত হচ্ছে না। পৌরসভার জলাবদ্ধতা নিরসনে জেলা নাগরিক কমিটির পক্ষ থেকে ৫ দফা দাবি পেশ করা হবে। দাবিগুলো হচ্ছে-জরুরিভাবে সাতক্ষীরা পৌরসভার জলাবদ্ধ এলাকার পানি নিষ্কাশনে যেখানে যে ধরণের বাধা রয়েছে তা অপসারণ করতে হবে। পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ করে যেসমস্থ মাছের ঘের গড়ে উঠেছে সেগুলো উচ্ছেদ করতে হবে। তাৎক্ষণিক পানি নিষ্কাশনের কোন পথ পাওয়া না গেলে সেখানে মেশিন দিয়ে পানি সেচের ব্যবস্থা করতে হবে। পৌর এলাকার জলাবদ্ধতা সমস্যার সমাধানে স্বল্প মেয়াদী, মধ্য মেয়াদী ও দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। পানি নিষ্কাশনের পথ ছাড়া নতুন কোন বাড়ি-ঘর-স্থাপনা নির্মাণের প্লান পাশ বা অনুমতি প্রদান করা যাবে না। সাতক্ষীরা পৌরসভার মাস্টার প্লান করতে হবে। নতুন ভবন নির্মাণের সময় চলাচলের পর্যাপ্ত রাস্তা ও ড্রেনেজ ব্যবস্থা রাখতে হবে। শহরের সকল রাস্তা প্রসস্ত করতে হবে। ফুটপাথ রাখতে হবে। গুরুত্বপূর্ণস্থানে ওভারপাস নির্মাণ করতে হবে। সকল সড়ক সংস্কার করতে হবে। প্রধান সড়কগুলো ডিভাইডার দিয়ে দুই ও চার লেন করতে হবে। ইটাগাছা হাট, পুরাতন সাতক্ষীরা হাট, কদমতলা হাট ও সাতক্ষীরা বড়বাজার প্রসস্ত ও নতুন বহুতল ভবন নির্মাণ করে আধুনিক হাট-বাজারে রূপান্ত্রিত করতে হবে। শহিদ আব্দুর রাজ্জাক পার্ক দখলমুক্ত ও ব্যবহারের উপযোগী করতে হবে। জনসাধারণের ব্যবহারের জন্য সাতক্ষীরা পৌর অডিটরিয়ামের ব্যবস্থা করতে হবে। প্রতিটি ওয়ার্ডে কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ ও খেলার মাঠ করতে হবে। শহরে পর্যাপ্ত ডাস্টবিন ও শৌচাগার নির্মাণ করতে হবে। শহরে শিশু পার্ক ও একাধিক হকার্স মার্কেট গড়ে তুলতে হবে।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন