জেলায় ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ ৮৫০ মে. টন চাল এবং ৪২ লক্ষ টাকা


এপ্রিল ১৭ ২০২০

Spread the love

জেলার প্রতিটি উপজেলায় ইউনিয়ন ভিত্তিক দুস্থ ও সামাজিক নিরাপত্তা বলয়ের বাইরে থাকা গরীব মানুষের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। তালিকা অনুযায়ী বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্যসামগ্রী পৌছে দেয়া হচ্ছে। ত্রাণসামগ্রী বিতরণের ক্ষেত্রে নিরাপদ সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে পাওয়া মোট বরাদ্দ থেকে ইতোমধ্যে উপজেলা, পৌরসভার অনুকূলে ৮৫০ মে: টন চাল এবং ৪২ লক্ষ টাকা বরাদ্দ রয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও পৌরসভার মেয়রগণ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের মাধ্যমে তালিকা প্রস্তুত করে এই ত্রাণ সহায়তা কর্মহীন হয়ে পড়া দুস্থ অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছেন। ইতোমধ্যে উপজেলা ও পৌরসভার ৬২৫০০ পরিবারের মাঝে সরকারি ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। সকল সরকারি ত্রাণ বিতরণের ক্ষেত্রে সকলকে ব্যাগের গায়ে ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার’ কথাটি লিখে দেয়া হচ্ছে।
সাতক্ষীরা জেলায় বরাদ্দকৃত ত্রাণ সহায়তা উপজেলা ও পৌরসভা ওয়ারী বন্টন করে দেয়া হয়েছে। সাতক্ষিরা সদর উপজেলায় ১৩৬ মেট্রিকটন চাল ও নগদ ৬,০৩,৫০০ টাকা, কলারোয়া উপজেলায় ৯২ মেট্রিকটন চাল ও নগদ ৪,৩০,০০০ টাকা, তালাউপজেলায় ১০৫ মেট্রিকটনচাল ও নগদ ৪,৭৪,০০০ টাকা, আশাশুনিউপজেলায় ৯৭ মেট্রিকটনচাল ও নগদ ৪,৮৪,০০০ টাকা, দেবহাটাউপজেলায় ৬৬ মেট্রিকটনচাল ও নগদ ৩,৩৭,০০০ টাকা, কালিগঞ্জউপজেলায় ৯৬ মেট্রিকটনচাল ও নগদ ৪,৬১,৫০০ টাকা, শ্যামনগরউপজেলায় ১১৬ মেট্রিকটনচাল ও নগদ ৫,৩৫,০০০ টাকা, সাতক্ষীরাপৌরসভা ১০৮ মেট্রিকটনচাল ও নগদ ৪,৯৭,০০০ টাকা এবং কলারোয়া পৌরসভা ৩৪ মেট্রিকটনচাল ও নগদ ১,২৮,০০০ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।
জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল বলেন, সরকারি ত্রাণের তালিকা এবং বিতরণে অনিয়ম স্বজনপ্রীতি ও দুর্র্নীতি হলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এবং দুর্নীতি দমন আইনে মামলা করা হবে। এছাড়া, দোকান খুলে দেয়ার কথা বলে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী দোকানদারদের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নিচ্ছেন তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। ঘরে থাকুন, বার বার সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলুন, নিরাপদে থাকুন। আপনি ঘরে থাকলে ভালো থাকবে আপনার পরিবার, ভালো থাকবে জাতি, ভালো থাকবে দেশ। জনস্বার্থে সকল কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন