আশাশুনিতে সরকারি বরাদ্দ এসেছে ১২ মেঃটন চাউল ও ১ লক্ষ টাকা


মার্চ ৩১ ২০২০

Spread the love

আশাশুনি প্রতিনিধি : ঘাতক করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে বেকার শ্রমিক ও দরিদ্র মানুষের সহায়তা প্রদানের জন্য জেলা প্রশাসক আশাশুনি উপজেলার জন্য দু’দফায় ১ লক্ষ টাকা ও ১২ মেঃটন চাউল বরাদ্দ দিয়েছেন। ঘোষিত ছুটির বড় অংশ পার হলেও সকল অসহায় মানুষের কাছে সহায়তা পৌছান সম্ভব হয়নি। ফলে দরিদ্র ও শ্রমজীবি কর্মত্যাগী মানুষের দুর্দশা বেড়েই চলেছে। সরকার সারা দেশে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেন। এসময় সকল বাস, মিনিবাস, ইজিবাইক, নিত্য প্রয়োজনীয় নয় এমন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, মিল কারখানা, অফিস-আদালত, সেলুনি, চা স্টলসহ অন্য প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এসব সেক্টরের শ্রমিকরা আয় বঞ্চিত হয়ে পড়েন। ফলে তাদের পক্ষে সংসার নির্বাহ ও স্বাভাবিক ব্যয় নির্বাহ অসম্ভব হয়ে পড়েছে। অসহায় মানুষের সহায়তা প্রদানের জন্য জেলা প্রশাসক মহোদয় প্রথম দফায় ৫০ হাজার টাকা ও ৫ মেঃটন চাউল আশাশুনির জন্য বরাদ্দ প্রদান করেন। পরবর্তীতে দ্বিতীয় দফায় আরও ৫০ হাজার টাকা ও ৭ মেঃটন চাউল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ঘোষিত ছুটি ৬ দিন অতিক্রান্ত হয়েছে। আশাশুনি উপজেলার ১১ ইউনিয়নের অসহায় মানুষের মাঝে এ পর্যন্ত আড়াই মেঃটন চাউল ও ৫০ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়েছে। প্রতি ইউনিয়নে আয় বঞ্চিত শত শত মানুষের মাঝে বিতরণকৃত টাকা ও চাউল খুবই নগন্য। অসহায় মানুষকে দ্রুত সরকারি সহায়তা পৌছে দিয়ে তাদেরকে বাড়িতে কোয়ারিনটাইনে রাখা কার্যকর করতে জোর দাবি জানান হয়েছে।

খাজরা ও আনুলিয়ায় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

আশাশুনি প্রতিনিধি : আশাশুনি উপজেলার খাজরা ও আনুলিয়া ইউনিয়নে শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে বিনামূল্যে চাউল-ডাউল ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার বিকালে এসব সমগ্রী বিতরণ করা হয়।
সাবেক স্বাস্থ্য মন্ত্রী অধ্যাপক ডাঃ আ ফ ম রুহুল হক এমপির পক্ষে খাজরা ইউনিয়নে এসব সামগ্রী বিতরণ করেন, ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এস এম শাহানেওয়াজ ডালিম। এসময় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাংবাদিক অসীম বরণ চক্রবর্তী, ইউপি সদস্য হোসেন আলী, অনুপ কুমার সানা প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন। অপরদিকে আনুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেনতনা সৃষ্টি ও দুই শত অসহায় দরিদ্র পরিবারের বাড়ি বাড়ি গিয়ে আনুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আলমগীর আলম লিটন চাল, ডাল, তৈল, সাবান, পেয়াজ, রসুন ও আলু সম্বলিত (প্রতি প্যাকেটের মুল্য পাঁচশত টাকা) দু’ শত প্যাকেট বিতরণ করা হয়।

আশাশুনিতে ঢাকাস্থ সাতক্ষীরা জেলা
সমিতির সহায়তা বিতরণ

আশাশুনি ব্যুরো ঃ আশাশুনিতে করোনা ভাইরাসের কারনে ক্ষতিগ্রস্ত দুস্থ ও অসহায় মানুষের মাঝে সাতক্ষীরা জেলা সমিতি ঢাকার পক্ষ থেকে খাদ্য সামগ্রী সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। সাতক্ষীরা জেলার বাসিন্দা ও বর্তমানে ঢাকায় বসবাসকারী ব্যক্তিদের উদ্যোগে মঙ্গলবার উপজেলার ১১ ইউনিয়নে এসব খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। সাতক্ষীরা জেলা সমিতি ঢাকার সভাপতি মোঃ খলিলুল্লাহ ঝড়–র উদ্যোগে এবং ফয়সল মোজাফফর ও ইরাদা মোজাফফরের সহায়তায় উপজেলার ১১ ইউনিয়নে ইউনিয়ন প্রতি ১০ প্যাকেট করে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। প্রতি প্যাকেটে চাউল, ডাউল, আলু, পেঁয়াজ, লবণ, তেল রয়েছে। এসব খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোসলেমা খাতুন মিলি। এসময় বিভিন্ন ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

কুল্যায় হোম কোয়ারেন্টাইন
তদারকিতে ইউপি চেয়ারম্যান

আশাশুনি প্রতিনিধি : আশাশুনি উপজেলার কুল্যা ইউনিয়নে বিদেশ ফেরত প্রবাসীদের বাড়ী বাড়ী গিয়ে হোম কোয়ারেন্টাইন তদারকি অব্যহত রেখেছেন ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বাছেত আল হারুন চৌধুরী। কুল্যা ইউনিয়নে ১ মার্চ হতে ১৭ মার্চ পর্যন্ত ৭৭ জন এবং ১৮ মার্চ হতে ২৮ মার্চ পর্যন্ত ৬ জন বিদেশ থেকে ফিরে এসেছেন। ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বরবৃন্দ ও গ্রাম পুলিশদের সহযোগিতায় প্রতিনিয়ত ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যক্তিদের খোঁজ খবর নিচ্ছেন। ইউনিয়নে প্রথম দফায় আসা ৭৭ জন প্রবাসী ব্যক্তিদের প্রশাসনের পক্ষ থেকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হলে তাদের বড় অংশ সময় শেষ করেছেন। ২য় দফায় আসা ৬ জন এখনো অনেক সময় বাকী রয়েছে। এসব ব্যক্তিরা নিয়ম ভঙ্গ না করেন এবং করোনা ভাইরাস থেকে পরিত্রান পেতে করণীয় বিষয় সম্পর্কে বিভিন্ন পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। এছাড়া বাজার থেকে শুরু করে গ্রামের মোড়ে মোড়ে জনসমাগম না করার জন্য সকলের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে কুল্যা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বাছেত আল হারুন চৌধুরীর নেতৃত্বে প্রচার, সচেতনতা, মানুষকে বাড়িতে থাকার ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন