কলারোয়া সংবাদ


ডিসেম্বর ২২ ২০১৯

কলারোয়ায় জমি নিয়ে বিরোধ, প্রতিপক্ষের হামলায় নারীসহ আহত-৩
নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কলারোয়ায় জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় এক নারীসহ ৩জন আহত হয়েছে। এঘটনার প্রতিকার চেয়ে কলারোয়ায় থানায় একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। আহতরা হলেন, উপজেলার বোয়ালিয়া গ্রামের মৃত আছির উদ্দীন বিশ^াসের ছেলে রফিকুল ইসলাম (৬০), শফিকুল ইসলাম (৪৫) ও শফিকুলের স্ত্রী রওশনারা খাতুন (৪০)। অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার বোয়ালিয়া গ্রামের নূররালি বিশ^াস, ইলিয়াস হোসেন, ইকবাল হোসেন, শারুক হোসেন, রবিউল ইসলাম দলবদ্ধ হয়ে গত ১৮ ডিসেম্বর বেলা ১টার দিকে রফিকুল ইসলামের জমিতে প্রবেশ করে জমির সীমানার খুটি উৎপাটন করে। এতে বাধা দিতে গেলে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে লাটি সোটা নিয়ে হামলা করে। এঘনায় রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে কলারোয়া থানায় ৫জনকে বিবাদী করে একটি অভিযোগ দিয়েছেন।

কলারোয়ায় ভারত-বাংলাদেশ বাউল মেলা অনুষ্ঠিত
নিজস্ব প্রতিবেদকঃ সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ভারত ও বাংলাদেদের দুই বাংলা বাউল মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার বিকেলে কলারোয়া পাবলিক ইনস্টিটিউটের হলরুমে এ বাউল মেলা অনুষ্ঠিত হয়। পাবলিক ইনস্টিটিউটের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. শেখ কামলার রেজার পরিচালনায় বাউল মেলায় উপস্থিত ছিলেন-কলারোয়ার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শেখ শহিদুল ইসলাম, প্রভাষক রফিকুল ইসলাম, কলকাতার বাউল শুভ্রুত সেন, মানস সরকার, কুষ্টিয়ার বাউল অনু ফকির, সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলা বাউল ফকির সমিতির সভাপতি মাস্টার আজিবর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আমির আলী ফকির, ইলিশপুরের ফকির মোতাহার সরকার, পাঁচপোতার আঃ খালেক ফকির, বাউল সংগঠক শেখ কান্তা রেজা, বাউল মিজান, আবু তালেব ফকির, সহিলুদ্দিন ফকির, রবিউল ফকির, কলারোয়া পৌর প্রেস ক্লাবের সভাপতি জুলফিকার আলী প্রমুখ।

কলারোয়ায় ইউপি চেয়ারম্যানে নির্যাতনে অসহায় যুবক হাসপাতালে
নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কলারোয়ায় ইউপি চেয়ারম্যানের নির্যাতনে এক অসহায় যুবক জখম হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এঘটনার সুষ্ঠ তদন্তের দাবীতে ওই ইউপি চেয়ারম্যানের নামে শুক্রবার সন্ধ্যায় কলারোয়া থানা লিখিত ভাবে একটি অভিযোগ দেয়া হয়েছে। অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার বোয়ালিয়া গ্রামের হাবিবুর রহমান গাইনের ছেলে ইমরান হোসেন (৩২) শুক্রবার সকালে বোয়ালিয়ার ফকিরপাড়া মোড় থেকে ওই এলাকার ইউপি চেয়ারম্যান আফজাল হোসেন হাবিলের নেতৃত্বে কয়েকজন যুবক তাকে ধরে নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদের নিয়ে যায়। সেখানে কোন কারন ছাড়াই ইমরান কে দড়ি দিয়ে বেধে বেধড়ক মারপিট করে জখম করা হয়। পরে আহত অবস্থায় তাকে এলাকাবাসী উদ্ধার করে কলারোয়া সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করে। এঘটনার সুষ্ঠ ও তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবীতে আহত ইমরানের পিতা হাবিবুর রহমান গাইন বাদী হয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আফজাল হোসেন হাবিলের নামে কলারোয়া থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছে। এদিকে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারমান আফজাল হোসেন হাবিল বলেন-তার পরিষদের এক গ্রাম পুলিশকে সে পিটিয়েছে। ওই সময় মনিরুল ইসলামকে থানা পুলিশের কাছে দেওয়ার কথা বলছিলো সকলেই কিন্তু তিনি তা না করে ছেড়ে দিয়েছেন।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন