সাতক্ষীরায় ৩য় শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ


আগস্ট ১৭ ২০১৯

Spread the love

নিজস্ব প্রতিনিধি : চকলেট খাওয়ানোর নাম করে করে বাড়িতে ডেকে নিয়ে তৃতীয় শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ করেছে চাচাত ভাই। শনিবার সকাল আটটার দিকে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঝাউডাঙা ইউনিয়নের একটি গ্রামের এক দিন মজুরের মেয়ে ও স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী। পুলিশ ধর্ষণের অভিযোগে একই গ্রামের এক দোকান কর্মচারিকে গ্রেপ্তার করেছে।
গ্রেপ্তারকৃতের নাম রাসেল হোসেন সাজু (২৪)। সে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঝাউডাঙা ইউনিয়নের দফাদার আলমগীর হোসেনের ছেলে।
ধর্ষিতার ভাই জানান, তাদের গ্রামের রাসেল হোসেন সাজু ঝাউডাঙা বাজারে আরশাদ আলীর রঙ এর দোকানের কর্মচারি। চাচাত ভাই সাজুর বাড়ি তাদের বাড়ির পাশে। তার বোন(৯) স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী। শনিবার সকালে মুষলধারে বৃষ্টির কারণে তার বোন স্কুলে না যেয়ে বাড়ির পাশে খেলতে যায়। বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে সাজু তার বোনকে চকলেট খাওয়ানোর নাম করে ঘরের মধ্যে ডেকে এনে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। বোন বাড়িতে গেলে স্বাভাবিকভাবে হাঁটতে না পারার বিষয়ে জানতে চাইলে মাকে সব খুলে বলে। তাৎক্ষনিক তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের গাইনি বিভাগের ৯নং শয্যায় (লেবার) ভর্তি করা হয়।
সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের গাইনি বিভাগের চিকিৎক ডাঃ কানিজ ফাতেমা জানান, ওই স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের সময় তার যৌনাঙ্গ ফেটে যাওয়ায় সেলাই দেওয়া হয়েছে।
সাতক্ষীরা সদর থানার উপপরিদর্শক মহসিন আলী বলেন, ধর্ষণের অভিযোগে রাসেল হোসেন সাজু নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শনিবার বিকেল সাড়ে তিনটা পর্যন্ত এ নিয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন