তালায় স্বাস্থ্য পরিদর্শকের বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের অভিযোগ


এপ্রিল ২৭ ২০১৯


নিজস্ব প্রতিনিধি ॥
তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ইউনিয়ন পরিদর্শক মেহেদী হাসান বাবুকে চক্রান্তমূলক ভাবে ফাসিয়ে ফায়দা লুটার অপচেষ্টা করছে স্থানীয় কতিপয় স্বার্থান্বেষী মহল। তাকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করতে ইতোমধ্যে ঐ চক্র সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন মিথ্যা,বানোয়াট,কুৎসা রটিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রকাশ, সাংবাদিকদের কাছে মিথ্যা ও মনগড়া তথ্য পরিবেশন করছে।
স্থানীয়রা জানান, মেহেদী হাসান বাবু উপজেলার খেশরা ইউনিয়নের মুড়াগাছা গ্রামের আবুল কালামের ছেলে। পড়ালেখা শেষ করে ২০০৫ সালে প্রথমত জেনারেল ম্যানেজার পদে চাকুরী নেন হানিফ কোম্পানীতে। সেই থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেন। সেখানে কর্মরত অবস্থায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক ইউনিয়ন পরিদর্শক পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিলে ঐপদে নিয়োগ পান তিনি। এরপর হানিফ পরিবহনের চাকুরী ছেড়ে যোগদান করেন, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য পরিদর্শক হিসেবে উপজেলার খেশরা ইউনিয়নে।
এবিষয়ে তালা উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম জানান, চাকুরীরত অবস্থায় দায়িত্ব পালনে এখন পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ পায়নি। সম্প্রতি তার বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ হলেও প্রাথমিক তদন্তে তার কোন সত্যতা মেলেনি।
এ বিষয়ে সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের সদস্য মীর জাকির হোসেন জানান, ইতোমধ্যে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও অনলাইন দৈনিকে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য পরিদর্শক মেহেদী হাসানকে অভিযুক্ত করে প্রকাশিত সংবাদে আমার যে বক্তব্য তুলে ধরা হয়েছে তা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। এব্যাপারে কেউ তার সাথে কোন প্রকার কথাও বলেনি।
এবিষয়ে হানিফ এন্টার প্রাইজের প্রশাসনিক প্রধান আবু সাঈদের সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি জানান,২০০৫ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত তিনি তাদের প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন। চাকুরীকালীণ তার সাথে পারিবারিক সম্পর্ক তৈরী হয়,যা বিদ্যমান রয়েছে।
পূর্ব সম্পর্কের যের ধরে এখনো ঢাকাতে আসলে সৌজন্য সাক্ষাৎ সহ পারিবারিক বিভিন্ন অনুষ্ঠানে মেহেদীর সরব উপস্থিতি রয়েছে। খবরে তাকে নিয়ে হানিফ এন্টার প্রাইজকে জড়িয়ে যা লেখা হয়েছে তা অসত্য।
এব্যাপারে অভিযুক্ত মেহেদী হাসান বাবু কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন অনলাইন ও আঞ্চলিক দৈনিকে এলাকার একটি কূচক্রি মহল সাংবাদিকদের দিয়ে মিথ্যা ও মনগড়া তথ্য পরিবেশন করিয়েছে। চাকুরীর পাশাপাশি স্থানীয় বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে তার প্রতি ঈর্ষান্বিত হয়ে স্থানীয় কতিপয় সুযোগ সন্ধানী মহল ঐসকল অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি এসময় প্রকাশিত সংবাদগুলোর প্রতিবাদ জানান। পাশাপাশি স্থানীয় সাংবাদিকদের প্রতি প্রকৃত ঘটনার সুষ্টু তদন্তপূর্বক সাদা সাংবাদিকতার আহ্বান জানান।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন