কৃষি ও পানি নিয়ে অনানুষ্ঠানিক মতবিনিময় সভা- সুপেয় পানিই সাতক্ষীরার সবচেয়ে বড় সমস্যা


জুন ৯ ২০১৮

নিজস্ব প্রতিনিধি: শুক্রবার দুপুর ২ টায় সাতক্ষীরা সার্কিট হাউজ মিলনায়তনে সাতক্ষীরায় কৃষি ও পানি নিয়ে এক অনানুষ্ঠানিক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট নদী ও জলবায়ূ বিশেষজ্ঞ এবং ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির সাবেক উপাচার্য ড. আইনুন নিশাদ। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইফতেখার হোসেন, সাবেক মন্ত্রী ডঃ আ

ফতাবুজ্জামান, সাতক্ষীরা পৌরসভার মেয়র তাসকিন আহমেদ, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সভাপতি

 ও দৈনিক কালের চিত্রের সম্পাদক অধ্যক্ষ আবু আহমেদ, দৈনিক দক্ষিনের মশালের সম্পাদক অধ্যক্ষ আশেক ই এলাহী, দৈনিক দৃষ্টিপাত সম্পাদক জি,এম নুর ইসলাম, সাতক্ষীরা জেলা নাগরিক কমিটির আহবায়ক মোঃ আনিসুর রহিম, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও দৈনিক পত্রদূত (ভারপ্রাপ্ত) সম্পাদক এ্যাড. আবুল কালাম আজাদ, দৈনিক প্রথম আলোর সাতক্ষীরা প্রতিনিধি কল্যান ব্যানার্জী, এটিএন বাংলার সাতক্ষীরা প্রতিনিধি এম, কামরুজ্জামান, দৈনিক জনকন্ঠের সাতক্ষীরা প্রতিনিধি মিজানুর রহমান, সাতক্ষীরা সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আমজাদ হোসেন, দৈনিক বনিক বার্তার জেলা প্রতিনিধি গোলাম সরোয়ার, দৈনিক কালের চিত্র ও ভয়েস অব সাতক্ষীরার স্টাফ রিপোটার মোঃ নাজমুল আলম মুন্না, উপপরিচালক বিএডিসি মোঃ নাজিম উদ্দীন, ২০৩০ বাংলাদেশ ওয়াটার রিসোর্স গ্রুপের কনসালটেন্ট রেহনুমা রহমান, ২০৩০ বাংলাদেশ ওয়াটার রিসোর্স গ্রুপের কোর্ডিনেটর সাইফ তানজিম কাইয়ুম(ওয়ার্ল্ড ব্যাংক) ব্র্যাক ইউনিভারসিটির

লেকচারার এবং কোর্ডিনেটর অপারেশন রউফা খানম, ধান গবেষণা ইনষ্টিটিউট এর সঞ্জয় কুমার ও ওলি আহমেদসহ বিভিন্ন স্টেক হোল্ডার প্রতিনিধি। আলোচনায় সাতক্ষীরা কৃষি, মাছ, ধান, পাট, ফল-ফালালি, মানুষের জীবন জীবিকা মান-ধরন এবং নদী, নালা, খাল-বিলসহ প্রধান প্রধান অন্তরায় ও নেতিবাচক বিষয়গুলোর উপর আলোচনা করতে যেয়ে জেলা প্রশাসক বলেন, সাতক্ষীরার প্রধান সমস্যা হচ্ছে সুপেয় পানি। এটা থেকে উত্তরণ হতে পারলে সাতক্ষীরার মানুষ অনেকটা স্বস্থি পেত । এছাড়া সাতক্ষীরার মানুষ নানা পেশার সাথে সম্পৃক্ত এই পেশা দিক দিয়ে যে যেভাবে নিজের উন্নয়ন ঘটাতে চায় সেটা তারাই ভাল বোঝে। যে লোক যে পোশার দিকে যেতে চায় অর্থনৈতিক ভাবে স্বালম্বি হতে কুরুক না এতে কোন সমস্যা নেই। যারা মাছ চাষ করতে চায় তারা মাছ চাষ করুক, যারা ফসল ফলাতে চায় তারা ফসল ফলাক। কিন্তু একই জমিতে বিভিন্ন ধরনের চাষ না করে একটা ফসলের চাষই ভাল। এতে তেমন কোন ক্ষতি নেই। কিন্তু মাছ চাষও করবেন আবার ধান চাষ করবেন তা হলেতো কোনটিই ভাল হবে না। এছাড়া আমাদের সমন্বয় হীনতার কারনেই কোন কাজে এজন্য মানুষ ভাল সুফল পায়না। ভাল সুফল পেতে হলে কাজের সমন্বয় দরকার। খাল ভরাট, নদী ভরাট, নদীর নাব্যতা হারানো চাষিদের জন্য প্রধান অন্তরায়।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন