ঘূর্ণিঝড় ফণি মোকাবেলায় সার্বিক প্রস্তুতি সম্পর্কে সাতক্ষীরায় প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত


মে ৩ ২০১৯


নিজস্ব প্রতিনিধি ঃ ঘূর্ণিঝড় ফণি মোকাবেলায় সার্বিক প্রস্তুতি সম্পর্কে সাতক্ষীরায় প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বেলা ১১ টায় সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিকস মিডিয়ার সাংবাদিকদের নিয়ে উক্ত প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়।
জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক এস.এম মোস্তফা কামাল এসময় বলেন, ঘূর্ণিঝড় ফণি মোকাবেলায় জেলায় ১৩৭টি আশ্রয় কেন্দ্র ও ১১৬ টি মেডিকেল টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ইতিমধ্যে আশ্রয় কেন্দ্র গুলোতে লোকজন উঠতে শুরু করেছে। জেলায় এখনও ৭ নং সতর্ক সংকেত দেওয়া হয়েছে। জেলার তিনটি ঝুঁকিপূর্ন উপকুলীয় উপজেলা শ্যামনগর, আশাশুনি ও কালিগঞ্জে সবধরনের প্রস্তুতি নিয়ে এরই মধ্যে কাজ শুরু করা হয়েছে। অপর চারটি উপজেলায়ও প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। এছাড়া উপকূলীয় এলাকার জেলে-বাওয়ালীদের পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নদীতে মাছ ধরা থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে।
এছাড়া উপকুলীয় এলাকায় ৫ হাজার স্বেচ্ছাসেবক প্রস্তুত রাখা হয়েছে। প্রত্যেক ইউনিয়নে মেডিকেল টিম ও স্বেচ্ছাসেবক টিম প্রস্তুত, ঝুঁকিপূর্ণ বেড়িবাঁধ সংস্কার, শুকনা খাবার মজুদ রাখা, বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা, ওষুধের পর্যাপ্ততা নিশ্চিতকরণসহ দুর্যোগ মোকাবেলায় সম্ভাব্য সকল প্রস্তুতি নিশ্চিত করার কথা জানানো হয়। ইতিমধ্যে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তার অফিসে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলা হয়েছে। এসব উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে সতর্ক সংকেত হিসাবে লাল পতাকা উত্তোলন করা হয়েছে। জেলায় দুর্যোগ মোকাবেলায় ১২শ প্যাকেট শুকনা খাবার, ৩১৬ মেট্রিক টন চাল, ৬ লক্ষ ৯২ হাজার টাকা, ১১৭ বান টিন, গগৃণ নির্মাণে সাড়ে ৭ লক্ষ টাকা ও ৪০ পিস শাড়ি মজুদ আছে। এছাড়া পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়ার পর্যন্ত জেলার সকল সরকারী কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কর্ম এলাকায় থাকতে বলা হয়েছে।
প্রেসব্রিফিং এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, সাবেক স্বাস্থ্য মন্ত্রী আফম রুহুল হক এমপি, সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার সাজ্জাদুর রহমান, প্রেসক্লাব সভাপতি অধ্যক্ষ আবু আহমেদ, সাধারন সম্পাদক মমতাজ আহমেদ বাপী প্রমুখ।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন