পানি, স্যানিটেশন ও হাইজিন বিষয়ক প্রকল্প অবহিতকরণ সভা : পরিচ্ছন্ন নগরী গড়ে তুলতে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন আনতে হবে


ডিসেম্বর ১০ ২০১৮


নিজস্ব প্রতিনিধি: নারী, শিশু, কিশোর-কিশোরী ও সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠির উন্নত জীবন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে সাতক্ষীরা পৌরসভায় ‘পানি স্যানিটেশন এবং হাইজিন বিষয়ক টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন কার্যক্রম’ শীর্ষক প্রকল্প অবহিতকরণ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার সকাল ১১টায় সাতক্ষীরা পৌরসভা অডিটোরিয়ামে নেদারল্যান্ডস ভিত্তিক দাতা সংস্থার সিমাভীর আর্থিক সহযোগিতায় এ মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন পৌরসভার মেয়র তাজকিন আহমেদ চিশতি। এ প্রকল্পের মাধ্যমে স্যানিটেশন এ্যাক্সেস, ব্যবহার, স্বাস্থ্যবিধি এবং নিরাপদ পানীয় জল ব্যবহার করতে পারবে। প্রকল্পটি চলবে ২০২০ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত। পানি স্যানিটেশন ও হাইজিন উদ্যোক্তা তৈরির মাধ্যমে ব্যবসায় সম্পৃক্ত করার প্রত্যয়ে প্রকল্পটি কার্যকর ভূমিকা রাখবে। সভায় পৌরসভার মেয়র তাজকিন আহমেদ চিশতি বলেন, ‘ সাতক্ষীরা পৌরসভায় এখন কিছুটা আশার আলো দেখতে পাচ্ছি। ২০১৯ সালের মার্চ মাসে কেএফডব্লিউ’র প্রকল্পের কাজ শুরু হলে মানুষের জীবন মানের উন্নয়ন হবে। প্রকল্পটি সচ্ছতা ও জবাবদিহিতার মাধ্যমে সম্পাদন করতে পারলে আরো অনেক প্রকল্প পাওয়া যাবে। এতে পৌর এলাকার মানুষের সুদিন ফিরে আসবে। আইলা, সিডর পরবর্তী সময়ে জীবিকার খোঁজে দক্ষিণ অঞ্চল থেকে প্রতিনিয়ত মানুষ শহরে আসছে। ফলে শহরাঞ্চলে বিশুদ্ধ পানি, স্যানিটেশন, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও ড্রেনেজ ব্যবস্থাপনার ঘাটতি বাড়ছে। স্বাস্থ্যসেবা উন্নয়নে সরকার বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ ও উন্নত স্যানিটেশন ব্যবস্থায় গুরুত্ব দিয়ে আসছে। পৌরসভাগুলোতে পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন ও হাইজিন ব্যবস্থা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। পৌর এলাকায় ৫০ হাজার জনগণ বেড়েছে। প্রত্যেক নাগরিককে আমরা পৌরসেবা নিশ্চিত করতে না পারলেও চেষ্টা করে যাচ্ছি। সাতক্ষীরা পৌরসভা অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী না হওয়ায় দৃশ্যমান কোন উন্নয়ন কাজ করতে পারছি না। পৌর এলাকার অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এখনও আধুনিকতার ছোঁয়া লাগেনি, আমরা আশা করছি আগামী ৬ মাসের মধ্যে এসব প্রতিষ্ঠান বা সাধারণ নাগরিকরা যাতে সহজে পৌরসভার সকল ধরনের নাগরিক সেবা গ্রহণ করতে পারে, সে ব্যবস্থা করা হবে। এছাড়া পৌরসভার উদ্যোগে শিক্ষিত বেকার নারীদের জন্য ইজিবাইক প্রদানের মাধ্যমে তাদেরকে স্বাবলম্বী করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। পৌর এলাকার মা ও শিশুর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে একটি হাসপাতাল করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সাতক্ষীরা পৌরসভাকে একটি পরিচ্ছন্ন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে হলে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন আনতে হবে। সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে সহযোগিতার মাধ্যমে এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি।’ বক্তব্য রাখেন আশা ইন্টারন্যাশনাল’র এইচপি এন্ড সিওও মো. এনামুল হক, ওয়াশ এ্যালাইন্স ইন্টারন্যাশনাল’র কান্ট্রি কো-অর্ডিনেটর অলোক কুমার মজুমদার, টিসি এইচপি মৃনাল কুমার সরকার, এইচ পি’র ইডি মো. মাহিউল কাদির প্রমুখ। মুক্ত আলোচনায় বক্তব্য রাখেন সনাক সদস্য প্রফেসর মো. আব্দুল হামিদ, জেলা নাগরিক কমিটির আহবায়ক অধ্যাপক আনিছুর রহিম, দৈনিক দক্ষিণের মশাল পত্রিকার সম্পাদক অধ্যক্ষ আশেক ই এলাহী, ইউপি চেয়ারম্যান বজলুর রহমান, মজনুর রহমান মালী, পৌর কাউন্সিলর অনিমা রানী ম-ল, টিআইবি’র সাতক্ষীরা এরিয়া ম্যানেজার আবুল ফজল মো. আহাদ, জেলা মহিলা পরিষদের সম্পাদিকা জ্যোৎ¯œা দত্ত, কিশোরী ন্যাপকিন’র ট্রেইনার রাবেয়া খাতুন প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন এনটিভি’র জেলা প্রতিনিধি সুভাষ চৌধুরী, পৌর কাউন্সিলর শেখ শফিক উদ দৌলা সাগর, জ্যোৎ¯œা আরা, শফিকুল আলম বাবু, দৈনিক কালের চিত্র পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার মো. আব্দুর রহমান প্রমুখ।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন