ভাড়ৃখালিতে রাস্তা ও গাছ কেটে খালের চরভরাটি জমিতে পাকা দোকান নির্মাণ করার অভিযোগ


জুন ২২ ২০১৮

বিশেষ সংবাদদাতা: সদর উপজেলার ভাড়ৃখালি বাজারে চলাচলের রাস্তা ও সরকারি খালের বেড়িবাঁধের গাছ কেটে দোকান নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। প্রতিকার চেয়ে সম্প্রতি ১১৬ জন গ্রামবাসী জেলা প্রশাসক ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবর অভিযোগ করেছেন।
অভিযোগসূত্রে জানা যায়, ভাড়ৃখালি ব্রীজের পশ্চিম পাশ দিয়ে জনসাধারণের চলাচলের একটি রাস্তা রয়েছে। রাস্তা সংলগ্ন ভাড়–খালি খালের চরভরাটি জায়গায় রয়েছে একটি হোটেল ও চায়ের দোকান। গত বৃহষ্পতিবার সকালে ওই দোকানের পাশে রাস্তা সংলগ্ন একটি নিম গাছ ও একটি খেজুর গাছ কেটে ফেলে সেখানে পাকা দোকান ঘর নির্মাণের কাজ শুরু করেন ভাড়ৃখালি গ্রামের আব্দুর রহমান ও তার ভাই রবিউল মাষ্টার ও একই গ্রামের আজিজ হাসান।
বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে পানি উন্নয়ন বোর্ড সাতক্ষীরা-১ এর সেকশান অফিসার এসএম সাঈদুজ্জামানকে অবহিত করা হয়। খবর পেয়ে তিনি কাটা নিম গাছ ও খেজুর গাছ জব্দ করলেও দোষীদের বিরুদ্ধে কোন মামলা করেননি। এমনকি তিনি অবৈধ নির্মাণ করা বন্ধ রাখার নির্দেশ দিলেও তা মানা হচ্ছে না। জনস্বার্থে এ অবৈধ নির্মাণ করা বন্ধ রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে। আব্দুর রহমানের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গা দখল করে বসত ঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নির্মাণের অভিযোগ করেন তারা।
জানতে চাইলে আব্দুর রহমান বলেন, তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী। ভাড়–খালি খালের পাশে পরিত্যক্ত জায়গায় তারা একটি দোকন নির্মাণের চেষ্টার কথা অস্বীকার না করেই বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের মৌখিক অনুমতি সাপেক্ষে তারা কাজ করছিলেন। পরে আপত্তি করায় কাজ বন্ধ রাখা হয়েছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড সাতক্ষীরা-১ এর সেকশান অফিসার এসএম সাঈদুজ্জামান জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কেটে ফেলা গাছের গুড়ি জব্দ করা হয়েছে।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন