নতুন কমিটির দাবিতে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবেজেলা ছাত্রদলের একাংশের নেতা কর্মীদের সংবাদ সম্মেলন : সদ্য ঘোষিত কমিটির সভাপতি, সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদককে শহরে অবাঞ্চিত ঘোষনা


জুন ২০ ২০১৮

 

শহর প্রতিনিধি : সদ্য ঘোষিত জেলা ছাত্রদলের সভাপতি, সাধারন সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদককে সাতক্ষীরা শহরে অবাঞ্চিত ঘোষনা করা হয়েছে। একই সাথে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে জেলা ছাত্রদলের পকেট কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে ত্যাগী নেতা কর্মীদের দিয়ে নতুন কমিটি ঘোষনার জন্য কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের কাছে দাবি জানিয়েছেন ছাত্রদলের একটি অংশের নেতাকর্মীরা। মঙ্গলবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে নেতাকর্মীদের পক্ষে এই দাবি জানান সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি শেখ রফিকুল ইসলাম রফিক।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় কমিটি কর্তৃক গত ১৩ জুন শেখ রফিকুজ্জামান সজীবকে সভাপতি, মমতাজুল ইসলাম চন্দনকে সাধারন সম্পাদক ও আবু রায়হানকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রদলের নতুন কমিটি ঘোষনা করা হয়েছে। সক্রিয় নেতার্মীদের সম্পূর্ন অচেনাদের দিয়ে কেন্দ্র ঘোষিত কমিটি দেখে হতবাগ হয়েছে জেলা ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। তিনি বলেন, খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সাতক্ষীরা শহর থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরে নেবাখালী গ্রামের বাসিন্দা সভাপতি শেখ রফিকুজ্জামান সজীব এনজিও কর্মী হওয়ায় স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে ঝিনাইদহা জেলায় বসবাস করে। সজীব বিগত ৫/৬ বছর ধরে সাতক্ষীরার রাজনৈতিক আন্দোলন সংগ্রাম থেকে সম্পূর্ন বিচ্ছিন্ন ছিল।
সাতক্ষীরা শহর থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে কলারোয়ার তুলসীডাঙ্গা গ্রামে অস্থায়ীভাবে বসবাসকারি সাধারন সম্পাদক মমতাজুল ইসলাম চন্দনের বাবা, মা ও ভাইবোন সকলেই ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের হাকিমপুরের তালবাড়িয়া এলাকায় বসবাস করে। বাংলাদেশ-ভারত আসা যাওয়া করতেই তার বেশিরভাগ সময় কেটে যায়। সে কিভাবে জেলায় ছাত্রদলের রাজনীতি এবং আন্দোলন সংগ্রামে ভূমিকা রাখবে তা আমাদের বোধগম্য নয়। ঘোষিত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আবু রায়হানের বাড়ি শহর থেকে ৭৫ কিলোমিটার দূরে শ্যামনগরের নওয়াবেকী গ্রামে। ওখানেই বসবাস করায় বিএনপিসহ অঙ্গ সংগঠনের কোন নেতা কর্মীদের সাথে ইতিপূর্বে তার কোন যোগাযোগ বা উঠাবসা নেই। ফলে এদের নেতৃত্বে ছাত্রদলের মত একটি ঐতিহ্যবাহি সংগঠন ভালো হওয়া তো দূরের কথা বরং সংগঠন খাদের কিনারে নিমজ্জিত হবে।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, সদ্য ঘোষিত সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রদলের সভাপতি সজীব, সাধারন সম্পাদক চন্দন ও সাংগঠনিক সম্পাদক রায়হান একটি ইউনিয়ন শাখা ছাত্রদলের নেতৃত্ব দেয়ার মত যোগ্যতা রাখে না। কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের উপর প্রভাব খাটিয়ে এবং তাদের কাছে মিথ্যে তথ্য দিয়ে ছাত্রদলের সাতক্ষীরা জেলা, পৌর ও থানাসহ সকল ইউনিটকে ধ্বংস করার মানসে অছাত্র, অযোগ্য ও অর্থব এসব লোকদের দিয়ে সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রদলের এই পকেট কমিটি ঘোষনা করা হয়েছে। তিনি এই কমিটি প্রত্যাখান করে সভাপতি সজীব, সাধারন সম্পাদক চন্দন ও সাংগঠনিক সম্পাদক রায়হানকে সাতক্ষীরা শহরে অবাঞ্চিত ঘোষনা করেন। একই সাথে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে জেলা ছাত্রদলের পকেট কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে ত্যাগী নেতা কর্মীদের দিয়ে নতুন কমিটি ঘোষনার জন্য কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের কাছে জোর দাবি জানান। অন্যথায় এই দাবির সপক্ষে জোরালো কর্মসূচী ঘোষনা করা হবে বলে জানান তিনি। সংবাদ সম্মেলনে জেলা, শহর, সদর ও কলেজ ছাত্রদলের শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন