প্রাণ নাশের হুমকির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন


জুন ৪ ২০১৮

শহর প্রতিনিধি: চাকুরির প্রলোভন দেখিয়ে এক গৃহ বধূকে ভারতে পাচারের ঘটনায় আদালতে মামলা দায়ের করায় আসামিরা বাদি গৃহ বধূর স্বামীকে প্রাণ নাশের হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সোমবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার দিঘলার আইট গ্রামের মৃত দাউদ আলী সানার ছেলে মোঃ আলমগীর হোসেন।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, কাজের সন্ধানে আমি বাইরে থাকার সুযোগে পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে পার্শ্ববর্তী সুভদ্রকাটি গ্রামের আরশাদ সানার ছেলে মোঃ আছাদুল হক খোকন বাড়িতে এসে আমার স্ত্রী রাবেয়া খাতুনকে ভারতে মোটা অংকের টাকার বেতনে চাকুরি প্রস্তাব দেয়। স্ত্রী বিষয়টি আমাকে জানলে আমি তাকে খোকনের কথায় ভারতে যেতে নিষেধ করি। আমার কথ শুনে স্ত্রী খোকনের সাথে যেতে অস্বীকৃতি জানায়। কিন্তু এর পরও খোকন বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন প্রলোভনে আমার স্ত্রীকে প্রলুব্ধ করে তোলে। এক পর্যায় গত ২৮ এপ্রিল সকাল ৯ টার দিকে আছাদুল হক খোকন ও তার সহযোগি দিঘলার আইট গ্রামের আয়ুব সানার ছেলে ওবায়দুল্লাহ, একই গ্রামের মৃত রজব ঢালীর ছেলে হযরত আলী, মৃত দরবার জোয়ার্দ্দারের ছেলে শাহ আলম, রুইয়ের বিল গ্রামের বাক্কার সানার ছেলে মহাসিন সানা ও সদর উপজেলার পদ্মশাখরা গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে শাহিন ইসলাম আমার বাড়িতে আসে। তারা ভারতে মোটা অংকের টাকার ভাল কাজ দেয়ার কথা বলে আমার স্ত্রী রাবেয়া খাতুনকে একটি ইঞ্জিন ভ্যানে তুলে বাড়ি থেকে নিয়ে যায়। কাজ শেষে বাড়িতে এসে স্ত্রীকে না পেয়ে খোঁজ খবর করতে থাকলে প্রতিবেশীরা জানায় উল্লেখিতরা তার স্ত্রীকে ভারতে খোকনের এক আত্মীয়ের বাড়িতে কাজের জন্য পাঠিয়েছে।
তিনি আরো বলেন, এঘটনার পর আমি খোকনের বাড়িতে গিয়ে ঘটনা জিজ্ঞাসা করলে সে জানায় রাবেয়াকে তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে কাজের জন্য পাঠিয়েছে। আমি তাকে ফেরত আনার জন্য চাপ সৃষ্টি করলে কথা কাটাকাটির এক পর্যায় খোকন জানায় চাকুরি দেয়ার নাম করে তার স্ত্রীকে ভারতের এক মারোয়াড়ীর কাছে ৫ লাখ টাকায় বিক্রি করে দিয়েছে। এনিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করলে তাকে হত্যার হুমকি দেয় খোকন। এঘটনায় থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা না নেয়ায় তিনি আদালতে উল্লেখিতদের নামে একটি মামলা দায়ের করেন। আদালত তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য আশাশুনি থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন। এদিকে মামলার কথা জানতে পেরে আসামিরা তাকে প্রাণ নাশের হুমকি দিচ্ছে। ফলে ভয়ে তিনি বাড়ি ছাড়া হয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছন। এঘটনায় তিনি গতকাল ৪ জুন আসামিদের নামে আদালতে একটি ৭ ধারার মামলা দায়ের করেছেন।
তিনি আসামিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি তার স্ত্রীকে ভারত থেকে ফিরিয়ে আনার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে সংশ্লিষ্ঠ প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন