পেঁয়াজের ঝাঁজে কাঁদছে ক্রেতা; একদিনের ব্যবধানে শার্শায় বাড়লো পেয়াজের দাম


ডিসেম্বর ৯ ২০২৩

Spread the love

 

হুমায়ন কবির মিরাজ,
শার্শা (যশোর) প্রতিনিধি: আমদানি বন্ধের অজুহাত দেখিয়ে বাগআঁচড়াসহ শার্শার বাজার গুলোতে এক রাতের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম দ্বিগুণ হয়েছে। ৮৫/৯০ টাকা কেজিতে বিক্রি হওয়া ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৬০/১৭০ টাকায়।এতে করে হঠাৎ দাম বাড়ায় বিপাকে পড়েছেন সাধারণ ক্রেতারা।
ক্রেতা সাধারন বলছেন, ভোক্তা অধিকারের লোকজন কোথায়? তারা কেন অভিযান পরিচালনা করছেন না।এই সুযোগে বাগআঁচড়া, নাভারন, চালিতাবাড়িয়া, গোগা ও শার্শা বাজারের ব্যবসায়ীরা এ অবৈধ কারবারটি করে এক দিনে লাখ লাখ টাকা ক্রেতা সাধারনের নিকট হতে হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এদের বিরুদ্ধে ঘন ঘন অভিযান পরিচালনা করে মোটা অংকের অর্থদন্ড করা প্রয়োজন। তা না হলে এরা নিজেদের ইচ্ছামত পুন্যের মূল্য বৃদ্ধি করতেই থাকবেন বলে সচেতন মহল মনে করেন।
শনিবার (৯ ডিসেম্বর) শার্শার বিভিন্ন বাজার সুত্রে জানা যায়, গতকালও ভারত থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ পাইকারি বিক্রি হয়েছে ৮৫-৯০ টাকা কেজি দরে। এক রাতের ব্যবধানে বর্তমান তা বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ১৭০ টাকা কেজি দরে।
বাগআঁচড়া বাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা মোস্তফা কামাল বলেন, ‘পেঁয়াজের বাজার এভাবে বাড়তে থাকলে আমাদের নিম্ন আয় দিয়ে সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হয়। কয়েক দিন পরপরই এভাবে বাড়ছে পেঁয়াজের বাজারদর। দুই দিন আগেও ৮৫-৯০ টাকা দরে পেঁয়াজ কিনেছি। আজ বাজারে এসে দেখি দেশি পেঁয়াজ ১৮০ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ১৬৭ টাকা কেজি। দুইদিন পরপরই বাজারের এমন দশা কিন্তু আইনশৃঙ্খলা কারীর কারক দেখা মেলে না। এভাবে হলে আমরা অল্প আয় দিয়ে বাঁচব কী করে?
এদিকে এ দাম বৃদ্ধির কারণ হিসেবে খুচরা ব্যবসায়ীরা পাইকারী ব্যবসায়ীদের উপর দোষ চাপাচ্ছেন।
আরেক ক্রেতা আজিজুর ইসলাম বলেন, বাজার নিয়ন্ত্রণে কোনও তদারকি না থাকায় সমস্যায় পড়ছেন পরতে হচ্ছে। আমি আজও পর্যন্ত বাগআঁচড়ায় কোন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তদারকি দেখিনি। প্রশাসনের হস্তক্ষেপ না থাকায় বাজারের আজ এই দশা। বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন।
শার্শা উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভুমি) ফারজানা ইসলাম জানান, এমন বিষয়টি তার জানা নেই।তবে পেঁয়াজের বাজার অস্তির করার চেষ্টা করছেন ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে তিনি জানান।
উল্লেখ্য শুক্রবার (৮ ডিসেম্বর) ভারতের বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয় এক প্রজ্ঞাপনে জানায়, বৃহস্পতিবার (৭ ডিসেম্বর) থেকে অন্যান্য দেশে পেঁয়াজ রপ্তানি নিষিদ্ধ করেছে তারা। আর ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ থাকবে ভারত থেকে পেঁয়াজ রপ্তানি।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি