লাবসা ইউপি নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ: পুনরায় ভোট গণনার দাবি


নভেম্বর ২১ ২০২১

সংবাদদাতা: সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ১৩নং লাবসা ইউপি সংরক্ষিত ২নং ওয়ার্ড নির্বাচনে প্রিজাইডিং অফিসারের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।
অভিযোগ সুত্রে জানাযায়, গত ১১ই নভেম্বর সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ১৩ টি ইউপি ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উপজেলার লাবসা ইউপি সংরক্ষিত নির্বাচনে ২ নং ওয়ার্ড ৪,৫,৬ এর প্রর্থী ছিল ৩ জন। এদের মধ্যে বক প্রতীকের প্রার্থী মোছাঃ নাজমা খাতুন, মাইক প্রতীকের প্রার্থী মোছাঃ ফেরদৌসী মিষ্টি এবং কলম প্রতীকের প্রার্থী ছিলেন, মোছাঃ আরিফা খাতুন সুইটি। উল্লেখিত তারিখে ভোটগ্রহণ শেষে দায়িত্বরত প্রিজাইডিং অফিসার মোঃ বখতিয়ার রহমান ভোট গণনা করেন। উক্ত ভোট গণনায় প্রিজাইডিং অফিসার ভোট জালিয়াতি করে মাইক প্রতীকের প্রার্থী মোছাঃ ফেরদৌসী মিষ্টি যোগসাজেসে বক প্রতীকের প্রার্থী মোছাঃ নাজমা খাতুন এর প্রাপ্ত ভোট কমিয়ে উভয়কে যথাক্রমে ৩৩৬৪ ভোট সম-পরিমান করে ঘোষনা দেন বলে দাবী করেন, ভুক্তভোগী নাজমা খাতুন। তিনি আরোও বলেন, প্রিজাইডিং অফিসার কর্তৃক ভোট গননা শেষে ফলাফলের লিখিত তালিকা না দিয়ে শুধুমাত্র মৌখিকভাবে ফলাফল ঘোষনা করে দ্রুত ভোট কেন্দ্র ত্যাগ করেন। তিনি আরোও জানান, থানাঘাটা আমিনিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্রে প্রকৃত পক্ষে বক প্রতীকে ১৩০০ ভোটের প্রাথমিক ফলাফল ঘোষনা করলেও পরবর্তীতে অজ্ঞাত কারণে প্রাপ্ত ভোট সংখ্যা কমিয়ে ১২৮৪ ভোট দেখানো হয়েছে। সঠিকভাবে নিয়মানুযায়ী ভোট গননা হলে আমি নিশ্চিত বিজয়ী হতাম। এ ঘটনায় বক প্রতীকের প্রার্থী নাজমা খাতুন পুনরায় ভোট গননার দাবী করে গত ১৪ই নভেম্বর রিটার্নিং অফিসার, পুলিশ সুপার, জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিতভাবে আবেদন করেছেন। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডে দায়িত্বরত প্রিজাইডিং অফিসার ও ঝাউডাঙ্গা কলেজের সহকারী অধ্যাপক মোঃ বখতিয়ার রহমানের সাথে মুঠোফোনেন আলাপকালে নির্বাচনের ফলাফলে অনিয়ম হয়েছে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি বকুল, বখতিয়ার আমার ভাই উনি পাশে নেই।

শ্যামনগর

যশোর

আশাশুনি


জলবায়ু পরিবর্তন